লাইফস্টাইল

হেয়ারস্টাইলের নতুন ট্রেন্ড; প্রেরণা সত্তরের দশক

একটা নতুন হেয়ারস্টাইল যেকোনো সময় যে কারো লুক বদলে দিতে পারে। এ জন্যই ফ্যাশনপ্রেমী থেকে শুরু করে চাকুরিজীবি বা গৃহিণী সবার থাকে হেয়ারস্টাইল নিয়ে বিশেষ সচেতনতা। সবার নজরও তাই থাকে নতুন হেয়ারস্টাইল ট্রেন্ডের দিকে।

২০২০ সালটি হেয়ারস্টাইলের জন্য খুব ভালো একটি বছর ছিল না। মহামারির জন্য বন্ধ ছিল পারলার, স্যালন। ঘরে বসেই কেউ  কেউ ইউটিউব দেখে নিজেই নিজের চুল কেটেছেন,কেউ চুল বড় করেছেন ।  সবকিছু নিয়েই নতুন করে ভাবছেন সবাই। এ সময়ে এসেছে বেশ কিছু নতুন হেয়ারস্টাইল ট্রেন্ড।

হেয়ারস্টাইলিস্টদের মতে, এ বছর সত্তর দশকের হেয়ারস্টাইলগুলো আবার আসবে। এর মধ্যে আছে ভারী লেয়ারের শ্যাগ, কারটেইন ব্যাংস ও মুলেট।

দ্য মুলেট

মাইলির হেয়ারস্টাইলের মুলেট

রক ও মেটাল ব্যান্ডের জন্মলগ্ন সত্তর দশকে ডেভিড বাওয়ি, রব স্টুয়ারট, কিথ রিচারড, নিল পার্ট, মতো বিখ্যাত শিল্পীরা মুলেট হেয়ারকাটকে জনপ্রিয় করেন। এর আগে প্রাচীন ব্রিটেন আর আদি আমেরিকানদের পুরুষদের এই চুলের স্টাইলে দেখা যেত বলে জানা যায়। এ বছর আবার ফিরে এসেছে  চুলের কাটটি। তবে ছেলেদের জন্য নয়, মেয়েদের দেখা যাচ্ছে মুলেটে। সামনে ছোট আর পেছনে লম্বা এই হেয়ারস্টাইলে চুল সাজিয়েছেন মাইলি সাইরাস, রিহানা, জেন্ডায়া, বারবি ফেরেইরার মতো সেলিব্রেটিরা। অফিস এবং পার্টি—উভয়ের জন্য চুলের এই স্টাইল উপযোগী। পেছনের লম্বা চুল ছেড়ে দিয়ে যেকোনো সময় পার্টির জন্য প্রস্তুত হওয়া যাবে আর সামনের দিকে চুলের ছোট কাট দেবে অফিস লুক।

দ্য শ্যাগ
ষাটের দশকের শেষের আর সত্তর দশকের গোড়ার দিকে এই হেয়ারকাটটি খুব বিখ্যাত হয়ে ওঠে। মাঝারি, লম্বা চুলেই বেশির ভাগ সময় শ্যাগ কাট করতে দেখা যায়। ছোট চুলের অধিকারীরা এই কাট দিতে চাইলে নব্বই দশকে বিখ্যাত হলিউড অভিনেত্রী মেগ রায়ানের মতো চুল কাটতে পারেন। শ্যাগ কাটের প্রধান বৈশিষ্ট্য অগোছালো লেয়ার। এই অগোছালো লেয়ারের মাধ্যমে চাইলেই চুলে ভলিউম সৃষ্টি করা যেতে পারে। এখন গোল, চৌকো, পানপাতা বা ডিম্বাকৃতি—সব আকারের মুখের জন্য মানানসই হেয়ারস্টাইল এটি।

কারটেইন ব্যাংস
এটিও সত্তর দশকের বেশ জনপ্রিয় হেয়ারকাট। সোজা লম্বা চুলে একটু নতুনত্ব আনতে বেছে নিতে পারেন কারটেইন ব্যাংস হেয়ারস্টাইল।  তখন ফারাহ ফসেট, ব্রিজেট বারডটের মত সেলিব্রেটিরা একে বিখ্যাত করেন। আর এখন জেনিফার লোপেজ, হিলারি ডাফ, হ্যাল বেরি, বিলি আইলিশকে দেখা যাচ্ছে কারটেইন ব্যাংসে। সাধারণ ব্যাংসের চেয়ে লম্বা এই ব্যাংসে যেকোনো স্টাইলেই চুল সাজাতে পারবেন। আর এই কারটেইন ব্যাংস পারলারে না গিয়ে ইউটিউব দেখে ঘরে বসেই কাটতে পারেন। হ্যাঁ, এতটাই সহজ এই চুলের কাট।

হেয়ারকালার
চুল না কেটে লুকে স্টাইলিশ পরিবর্তন আনতে চাইলে চুল রং করার চেয়ে ভালো বিকল্প আর কিছু হতেই পারে না। অনেক রঙেই চুল রাঙাতে যায়। প্রতিবছর হেয়ারকাটের মতো হেয়ারকালারেরও নতুন ট্রেন্ড আসে। এ বছর আলপাইন আইস, গোল্ডেন ব্ল্যাক, ব্লু, প্যাস্টেল শেড, মিন্ট চকলেট, কপার, ম্যাট ব্রাউন, বাটারক্রিম ব্লন্ড, আইস গ্রে, ল্যাভেন্ডার গ্রে, স্যান্ড ট্রোপেজ (ধূসর ও সোনালির মাঝামাঝি শেড) ইত্যাদি রঙের আধিপত্য বেশি থাকবে।

 

Back to top button
%d bloggers like this: