বিশেষ প্রতিবেদন

পাহাড়ি ও বাঙালী সম্প্রীতি বজায় রাখতে সরকার কাজ করছে

পাহাড়ি ও বাঙালিদের মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখতে সরকার সবকিছু করবে বলে জানিয়েছেন ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা) কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

তিনি বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আলাদা কোনো দেশ নয়। পাহাড়ি ও বাঙালি আমরা সবাই বাংলাদেশি। এ পরিচয়েই আমরা সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছি। জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ যেন মাথাছাড়া দিয়ে উঠতে না পারে সে জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছে।

মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গার তবলছড়ির লাইফু কুমার কার্বারী পাড়ায় বাঙালি কৃষকদের ওপর হামলার ঘটনাস্থল পরিদর্শনের আগে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। তবলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ হলরুমে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় আরও বক্তব্য দেন- গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন, খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস, যামিনীপাড়া বিজিবির অধিনায়ক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ও খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মো. আব্দুল আজিজ।

পাহাড়ের শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে পাহাড়ি ও বাঙালিদের মিলেমিশে বসবাস করার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, বাঙালিদের ওপর হামলার ঘটনায় যারা গুজব ছড়াচ্ছে তাদেরকে ছাড় দেয়া হবে না।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিস ফারজানা আক্তার ববি, মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আলী, মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম হুমায়ুন মোরশেদ খান, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য হিরন জয় ত্রিপুরা, মো. মাইন উদ্দিন, মো. আব্দুল জব্বার, তবলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল কাদের ও তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর প্রমুখ।

মতবিনিময় সভা শেষে ৪ এপ্রিল বাঙালি কৃষকদের ওপর ইউপিডিএফের সশস্ত্র হামলার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

Back to top button
%d bloggers like this: