করোনা ভাইরাসপ্রধান খবর (বাংলাদেশ)শিরোনামশীর্ষ খবরস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা

‘হাসপাতালে এক ইঞ্চি জায়গা নাই বেড বসানোর’ – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন লকডাউন চলাকালীন স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নিয়ম না মানলে দেশের করোনার ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।

তিনি বলেন, যদি ২ হাজার লোকের জায়গায় ৫০,০০০ লোক সংক্রামিত হয়, তবে এটি সরকারের  পক্ষে কমানো সম্ভব না।

মন্ত্রী মহাখালীতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের একটি ভবনকে কোভিড -১৯ চিকিৎসার জন্য এক হাজার ২০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে রূপান্তর করার এক অনুষ্ঠানের পরে সাংবাদিকদের  সাথে এসব কথা বলেন ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের কোভিড -১৯ এর জন্য সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতালে মোট ৩৫০০ বেডিং করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী দাবি করেন যে সরকারী হাসপাতালে করোনার রোগীদের সেবার জন্য ২৫০০ বেডের জায়গায়  দ্বিগুণ করে ৫ হাজার করা হয়েছে। শীঘ্রই ১২০০ টিরও বেশি বেড যুক্ত করা হবে। এছাড়াও, বেসরকারী হাসপাতালে এক হাজার শয্যা রয়েছে ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “সবচেয়ে বড় কথা হল আমরা পাঁচ হাজার শয্যা তৈরি করেছি। এখন এক ইঞ্চি জায়গাও নেই যেখানে আপনি অন্য একটি বেড রাখতে পারেন।  তাহলে আমি বেডগুলো কোথায়  দেব? আপনাদের বাড়িতে ত আর বেড নিয়া গেলে হবে না ।”

তিনি বলেন যে রোগী যাতে না বাড়ে তার জন্য সংক্রমণ কমানোর কোনও বিকল্প নেই।

তিনি প্রশ্ন তুলেন, “যদি রোগী আজ ১০ হাজার হয়ে যায়, ২০ হাজার হয়ে যায় , আপনি তাদের কোথায়  নেবেন? আপনি কোথায় তাদের ট্রিট্মেন্ট করাবেন? বা আমি কোথায় এত ডাক্তার পাব?”

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেছেন, অনেকেই লকডাউন মানতে চান না। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দোকানদাররা বিক্ষোভ ও ভাঙচুর করেছেন।

তিনি বলেন, জনগনের কল্যানেই লকডাউন ও ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

আমরা যদি সংক্রমণ এবং মৃত্যু কমাতে  চাই, আমাদের লকডাউন নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে। আমাদের ১৮ -দফা নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে, আমাদের মাস্ক পরতে হবে, এবং আমাদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

তিনি বলেন, সংক্রমণ কমাতে সরকার সব ধরণের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং প্রচেষ্টাতে কোনও ত্রুটি নেই।

ঢাকাসহ সারা দেশে ২ হাজার হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা এবং অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর দেয় হয়েছে ।  তিনি দাবি করেছেন যে সিস্টেমটি আইসিইউর মতো কাজ করবে ।

Back to top button
%d bloggers like this: