কুড়িগ্রামে টাইলস মিস্ত্রি নিহত, আহত ১
English

কুড়িগ্রামে টাইলস মিস্ত্রি নিহত, আহত ১

কুড়িগ্রামে টাইলস মিস্ত্রি নিহত, আহত ১

কুড়িগ্রামে টাইলস মিস্ত্রি নিহত, আহত ১
কুড়িগ্রামে টাইলস মিস্ত্রি নিহত, আহত ১

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের দক্ষিণ খেয়ারচর গ্রামের ফেরদৌস কোম্পানী নৌঘাট এলাকায় আজ সোমবার (২১ জুন) সকালে এরশাদুল ইসলাম (৩০) নামে এক টাইলস মিস্ত্রি খুন হয়েছে। গলায় ধারালো ছুরি ঢুকিয়ে দেওয়ার ফলে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু ঘটে।

এ সময় তাকে বাঁচাতে অপর টাইলস মিস্ত্রি মাসুদ রানা (২০) এগিয়ে গেলে তার ঘাড়ে ছুরি দিয়ে আঘাত করে ঘাতক। এতে মাসুদ রানা গুরুতর আহত হলে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মাসুদ রানা জানিয়েছে, তাদের একই গ্রামের অধিবাসী লিটন মিয়ার ছেলে ও সহকর্মী টাইলস মিস্ত্রি মো. শিহাব মিয়া (১৯) এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। নিহত এরশাদুল ইসলাম বিবাহিত এবং এক সন্তানের জনক। তাকে শিহাব কি কারণে হত্যা করছে তার প্রকৃত কারণ এখন পর্যন্ত উদঘাটন করা সম্ভব হয়নি। শিহাব বর্তমানে পলাতক রয়েছে।

তবে এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নারীঘটিত বিষয় জড়িত বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছে। কেউ বলছে শিহাবের চাচাতো বোনের সাথে পরকীয়া প্রেমের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে। আবার কেউ বলছে, ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠায় তার ভাইয়েরা শিহাবকে ভাড়া করে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়ে থাকতে পারে।

তবে নিহত এরশাদুল ইসলামের বাবা সুরতজামান বাদী হয়ে মো. শিহাব মিয়াকে আসামি করে থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছে।

তিনি আরো তার এজাহারে উল্লেখ করেছে, বিপাশা নামে ১৩ বছর বয়সী কিশোরীর সাথে এরশাদুলের সম্পর্কের জেরে শিহাব এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রৌমারী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোন্তাছের বিল্লাহ জানান, রাতেই ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়। এরপর জিডি মূলে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ জেলা সদরের জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরো জানান, নিহতের বাবা কর্তৃক দায়েরকৃত এজাহার পেয়েছে। এজাহারটি এখন মামলা হিসেবে রেকর্ডের প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া হত্যার প্রকৃত মোটিভ উদঘাটন ও আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

শেয়ার করুন


Advertisement




Ads Manager

All Rights Resrved & Protected