অন্যান্য

মহামারী করোনা ঊর্ধ্বমুখী, দেশ কি আবারো লকডাউনের পথে?

মহামারি করোনায় দেশে হু হু করে বাড়ছে মৃত্যু ও শনাক্ত। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৫৯ জন। যা এ যাবতকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৯ হাজার ১০৫ জনে। এ নিয়ে দেশের ইতিহাসে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৪৬৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

গত বছর ৮ মার্চ দেশে প্রথম কোন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর এত বেশিসংখ্যক রোগী আর শনাক্ত হয়নি। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ১৭ হাজার ৭৬৪ জনে।

এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে বেশি সংক্রমিত এলাকায় জনসমাগম নিষিদ্ধসহ ১৮টি নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। একই সঙ্গে রাত ১০টার পর প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের না হতেও বলা হয়েছে। এসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন হলে কার্যত আংশিক লকডাউনে যাবে দেশ।

এছাড়াও মসজিদসহ সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন নিশ্চিত করা, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধারণক্ষমতার ৫০ ভাগের অধিক যাত্রী বহন না করা, যান চলাচল সীমিত করা, বিদেশ হতে আগত যাত্রীদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখা, সকল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ৫০ ভাগ জনবল দ্বারা পরিচালনা করা সহ ১৮ নির্দেশনা জারি করে সরকার।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার (০১ এপ্রিল) দেশে করোনা পরিস্থিতি অবনতির কারণে ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ ও লক্ষীপুর-২ আসনসহ সব নির্বাচন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এছাড়াও শিগগিরই দ্রুত সম্ভব দেশে চলমান বইমেলা, সামাজিক অনুষ্ঠান, বিনোদনকেন্দ্র ও অন্যান্য মেলা বন্ধের সুপারিশ করেছে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। একইসঙ্গে হাসপাতালগুলোতে হাসপাতাল শয্যা ও আইসিইউ বাড়ানোর পরামর্শও দিয়েছেন তারা। সেই সঙ্গে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকেও নির্দেশনা নেয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সরকারের ১৮টি নির্দেশনা, দেশের সকল নির্বাচন স্থগিত, ট্রেনের টিকিট বিক্রি স্থগিত,  চলমান বইমেলা ও দেশের বিনোদনকেন্দ্র বন্ধের সুপারিশ, গণপরিবহনে যাত্রীর চলাচল নিয়ন্ত্রণ, সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ৫০ ভাগ জনবল দ্বারা পরিচালনা করার মাধ্যমে সরকার আবারও লকডাউনের পথে হাটবে তা অনেকটাই অনুমেয়।

Back to top button
%d bloggers like this: